সুইজারল্যান্ড যেতে কত টাকা লাগবে

এক সময় অকল্পনীয় মনে হলেও আজ বাংলাদেশ থেকে সুইজারল্যান্ড যাওয়া আর অসম্ভব সাধনা নয়। হিমালয়ের চূড়া থেকে আল্পসের পাদদেশে পা রাখার স্বপ্ন এখন সত্যি হতে পারে। সেজন্য বাংলাদেশ থেকে সুইজারল্যান্ড যাওয়ার পথ জানতে হবে। সুইজারল্যান্ড একটি ব্যয়বহুল দেশ। তবে দেশটি বিশ্বের সবচেয়ে বেশি অর্থ প্রদানকারী দেশগুলির মধ্যে একটি।

অধিক আয়ে শ্রমিকরা ভালোভাবে বাঁচতে পারে। সারা দেশে শিক্ষার্থীদের ভালো চাকরির সুযোগ রয়েছে। স্নাতক শেষ করে অনেক শিক্ষার্থী চাকরি পেতে পারে। দেশটি তার মনোরম আল্পস, মনোমুগ্ধকর হ্রদ এবং সবুজ উপত্যকার জন্য বিখ্যাত। প্রকৃতি প্রেমীদের জন্য এটি একটি স্বর্গ। তবে বাংলাদেশ থেকে সুইজারল্যান্ড যেতে কত টাকা লাগবে। সুইজারল্যান্ডে যেতে কত টাকা লাগবে তাও জানতে হবে।

বাংলাদেশ থেকে সুইজারল্যান্ড যাওয়ার উপায়

সুইজারল্যান্ড একটি শেনজেন দেশ। তবে, এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য নয়। বাংলাদেশ থেকে অনেকেই দেশটিতে যেতে চান। কিন্তু দেশটিতে যেতে হলে শেনজেন ভিসা লাগে। তবে আপনি জাতীয় ভিসা নিয়ে দেশে যেতে পারেন। তবে, শেঞ্জেন ভিসা পাওয়া অনেক সুবিধা দেয়। যা পড়লে ভালো করে জানতে পারবেন শেনজেন দেশের সুবিধা কী কী।

আপনার যদি অনেক শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকে তাহলে আপনি খুব সহজেই দেশে পাড়ি দিতে পারবেন। অন্যথায় দেশে যাওয়া আপনার জন্য কঠিন হবে। অদক্ষ শ্রমিকদের সাধারণত সুইস সরকার নিয়োগ দেয় না। আপনার উচ্চ যোগ্যতা এবং দক্ষতা থাকলে (সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার) আপনি অনলাইনে চাকরির জন্য আবেদন করতে পারেন।

যদি দেশটির সরকার আপনাকে যোগ্য বলে মনে করে তবে এটি একটি ওয়ার্ক পারমিট ভিসা প্রদান করবে। কিন্তু তৃতীয় শ্রেণীর দেশ থেকে বাংলাদেশের মতো দেশে যাওয়া কঠিন। সেটা ভিসার যেকোনো ক্যাটাগরিতেই হোক। সুইজারল্যান্ড ভ্রমণের জন্য প্রয়োজনীয় যোগ্যতা এবং নথি:

  • জাতীয় পরিচয়পত্র
  • পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি
  • পাসপোর্ট
  • শিক্ষগত যোগ্যতার সনদ
  • ভিসা  ফি প্রদানের রশিদ
  • ইংরেজি ভাষা দক্ষতার সনদ
  • ব্যাংক স্টেটমেন্ট
  • চাকরির অভিজ্ঞতার প্রমাণ
  • কভার লেটার
  • চিকিৎসা বিমা
  • পুলিশ ক্লিয়ারেন্সি সার্টিফিকেট

সুইজারল্যান্ড যেতে কত টাকা লাগবে

সুইজারল্যান্ড ভ্রমণের খরচ নির্ভর করে ভিসার ক্যাটাগরি এবং আবেদন প্রক্রিয়াকরণের উপর। বাংলাদেশ থেকে কেউ নিজে ভিসার জন্য আবেদন করলে তার খরচ পড়বে ৭ লাখ থেকে ৮ লাখ টাকা। যদি কেউ একটি প্রাইভেট এজেন্সির মাধ্যমে যায় তাহলে খরচ হবে 15 লক্ষ থেকে 20 লক্ষ টাকা।

বাংলাদেশ থেকে সুইজারল্যান্ডের ভিসা পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। তাই দালালের লোভনীয় ভিসা অফার থেকে দূরে থাকুন। সাধারণত ট্যুরিস্ট এবং স্টুডেন্ট ভিসার খরচ কম। অন্যদিকে, ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় বেশি খরচ হয়।

সুইজারল্যান্ড নাগরিকত্ব পাওয়ার উপায়

সুইজারল্যান্ডের নাগরিকত্ব পাওয়া এত সহজ নয়। এটি একটি দীর্ঘ এবং জটিল প্রক্রিয়া। তবে সুইস নাগরিকত্ব পাওয়ার কিছু উপায় আছে। আপনার যদি সি পারমিট থাকে এবং আপনি 10 বছরেরও বেশি সময় ধরে দেশে থাকেন তবে আপনি নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে পারেন। সুইজারল্যান্ডের নাগরিককে বিয়ে করে নাগরিকত্ব পেতে পারেন।

এর জন্য আপনার বিয়ের বয়স হতে হবে কমপক্ষে তিন বছর। বিয়েসহ দেশে বসবাসের মোট বয়স হতে হবে ১৮ বছর। কিছু শর্ত পূরণ করে জন্মসূত্রে নাগরিকত্ব পাওয়া যায়। আপনি একজন নাগরিক না হলেও আপনার সন্তান দেশে জন্মগ্রহণ করলে নাগরিকত্ব পেতে পারে। এছাড়াও আপনার বাবা-মা যদি সুইজারল্যান্ডের নাগরিক হন তবে আপনি ইতিমধ্যেই নাগরিকত্ব পাবেন।

Enjoyed this article? Stay informed by joining our newsletter!

Comments

You must be logged in to post a comment.

Related Articles